আজ শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম

মো: নাঈম শাহ্, নীলফামারী প্রতিনিধি  :

নীলফামারী সদর উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের চকদুবুলিয়া এসসিবি উচ্চ বিদ্যালয়ে ক্লাসের সময় শ্রেণিকক্ষে নেই শিক্ষকরা । শিক্ষকরা ক্লাসে নেই বলে শিক্ষার্থীরা ক্লাসে খেলছে জুয়া। এছাড়া শুধু তাই নয় নানা অনিয়ম দূর্নিতির মাধ্যমে চলছে চকদুবুলিয়া এসসিবি উচ্চ বিদ্যালয়ের কার্যক্রম বলছেন স্থানীয়রা ।

সারেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ক্লাসের সময় শ্রেণিকক্ষে কোন শিক্ষক ছিলো না, শিক্ষকেরা বাইরে দাড়িয়ে গল্প করতেছিলো। শ্রেনিকক্ষে কোনো শিক্ষক না থাকায় তার ফল অনুসারে ক্লাসে শিক্ষার্থীরা জুয়া খেলছে। এছাড়া আসন্ন এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পুরোনে বোর্ড নির্ধারিত ফি’র চেয়ে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে বলে জানান অভিভাবকরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন শিক্ষার্থী জানায়, আমাদের স্কুলে শিক্ষকের সংখ্যা ১০জন, তবুও যদি তারা ক্লাসের সময় আমাদের ক্লাস না নেয় তাহলে আমরা কি করবো? আমাদের স্কুলের পড়াশুনার যে গতি সে গতিতে একটি স্কুলের শিক্ষা ব্যবস্থা চলতে পারে না। আমরা এর থেকে উত্তরণের জন্য উদ্ধতর্ণ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।

ক্লাসের জুয়া খেলার বিষয়টি নিয়ে স্কুলের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের সাথে কথা বললে তারা জানান, আমরা আমাদের ছেলে মেয়েদের জ্ঞান অর্জনের জন্য পাঠাই বিদ্যালয়ে। কিন্তু তারা বিদ্যালয়ে কি করে সেটা দেখার দায়িত্ব শিক্ষকের কিন্তু শিক্ষকেরা সেদিকে নজর না দিলে দেশে শিক্ষার মান কোথায় যাবে বোঝাই যাচ্ছে। উক্ত বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী খাদিজা আক্তারের (রোল:০৩) পিতা জানায়, এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পুরোনের জন্য দুইহাজার সাতশত টাকা প্রয়োজন। ফরম পুরোনের জন্য স্কুলের নির্ধারিত ফি’র নোটিশ দেখতে চাইলে দেখাতে পারে নি স্কুল কতৃপক্ষ।

স্কুলের ধর্মীয় শিক্ষক মোজাফফোর হোসেনের কাছে স্কুলের সার্বিক বিষয় সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি জানান, নীলফামারী সদরের সীমান্তবর্তী এলাকায় স্কুলটি হওয়ায় উর্দ্ধতণ কতৃপক্ষের নেই কোনো নজর দাড়ি, তাই স্কুলটির শিক্ষার অবস্থা বেহাল। এ বিষয়ে উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের অনুপস্থিতে সহকারি প্রধান শিক্ষক অমূল্য চন্দ্র রায় কোনো বিষয়ে পরিষ্কার করে বলতে পারে নি। এ বিষয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক কৃষ্ণচরন রায়ের সাক্ষাতে কথা বলতে চাইলে তিনি অসুস্থতার কথা বলে সবকিছু এড়িয়ে যায়।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আহসান হাবিব বলেন, কয়েকদিন আগে আমরা স্কুলটি পরিদর্শন করে এসেছি। স্কুলের অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রথমে আমরা প্রধান শিক্ষককে কারন দর্শানোর নোটিশ দেবো এবং বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখবো।

0Shares

 
 
 

আরও পড়ুন

 

Top