আজ শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ০২:৪৪ অপরাহ্

শিরোনাম

রাজশাহীর তানোর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে তা বাতিলের দাবিতে মহানগরীতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে ওয়ার্কাস পার্টির নেতাকর্মীরা।
বৃহস্পতিবার দুপুরে স্মারকলিপি দেওয়ার সময় বাম দলের নেতাদের সঙ্গে জেলা প্রশাসকের উত্তপ্ত বাকবিতণ্ডার  ঘটনা ঘটেছে। গত ১০ মার্চ প্রথম ধাপে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, সদ্য সমাপ্ত উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে কৃষকলীগের তানোর উপজেলা শাখার সাবেক আহ্বায়ক শরিফুল ইসলাম দলীয় মনোনয়ন চেয়ে না পেয়ে তিনি ওর্য়াকাস পার্টিতে যোগ দেন। পরে ওয়ার্কার্স পার্টি থেকে মনোনয়ন পেয়ে হাতুড়ি মার্কা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।
এদিকে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন তানোর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি লুৎফর হায়দার ময়না। গত ১০ মার্চ অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর চেয়ে ৩৫৪ ভোট বেশি পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।
নির্বাচনের ফলাফলে কারচুপির অভিযোগ এনে পরের দিন রাজশাহীতে ওয়ার্কার্স পার্টি সংবাদ সম্মেলন করে ফলাফল বাতিল ও পুনরায় নির্বাচনের দাবি জানায়।
সংবাদ সম্মেলনে হাতুড়ি মার্কার সমর্থকদের ওপর হামলা, মারপিট ও নির্যাতনের অভিযোগ আনা হয়। ভোটে কারচুরি ও নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা আনসার সদস্যদের দিয়ে নৌকায় ভোট দেওয়ার অভিযোগ করা হয় সংবাদ সম্মেলনে। নয়টি কেন্দ্রে ভোটের ফলাফল পাল্টে দেওয়ার অভিযোগ করা হয়। মুঠোফোনে ধারণ করা এ সংক্রান্ত ভিডিও দেখানো হয় সংবাদ সম্মেলনে। এখানে দলের জেলা ও মহানগর শাখার নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে ওয়ার্কার্স পার্টির নেতাকর্মীরা মহানগর কোর্ট শহীদ মিনার চত্ত্বর থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে যায়। মিছিল থেকে নির্বাচন বাতিলের দাবি ও কারচুপি নিয়ে আপত্তিকর শ্লোগান দেওয়া হয়। মিছিলে থাকা নেতাকর্মীরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে বসেন। পরে সংগঠনের কয়েকজন নেতা তাঁদের দাবি-দাওয়া সম্বলিত স্মারকলিপি জেলা প্রশাসকের কাছে দেন। স্মারকলিপিতে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা বন্ধ ও পুনরায় নির্বাচনের দাবি জানানো হয়েছে।
নির্বাচনে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শরিফুল ইসলাম বলেন, তাঁর কর্মীদের ওপর যে নির্যাতন চালানো হচ্ছে তা ভয়াবহ। এখনো তাঁর কর্মী সমর্থকদের বাড়ি থেকে বের হতে দেওয়া হচ্ছে না, ধানখেতে পানি সেচ দিতে প্রতিপক্ষের লোকজন বাঁধা দিচ্ছেন বলে পাল্টা অভিযোগ করেন।
তিনি আরো বলেন, নেতারা গত ১০ মার্চ অনুষ্ঠিত তানোর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে কারচুপি ও পরবর্তী সহিংসতা বিষয়ে মৌখিক অভিযোগ দেন। জেলা প্রশাসক বিষয়টি দেখার আশ্বাস দেন।
কথাবার্তার একপর্যায়ে জেলা প্রশাসক এস এম আবদুল কাদের সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা জানালে সেখানে উপস্থিত ওয়ার্কার্স পার্টির রাজশাহী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এস আশরাফুল হক তোতার সঙ্গে জেলা প্রশাসকের উত্তপ্ত বাকবিতণ্ডা হয়। এসময় জেলা প্রশাসক কারচুপির বিষয়ে তাঁর কাছে প্রমাণ চান।
জেলা প্রশাসকের সঙ্গে তাঁর বাকবিতণ্ডার কথা স্বীকার করে আশরাফুল হক বলেন, স্মারকলিপি দিতে গেলে এরকম হৈ-চৈ হয়ে থাকে। তবে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে কথা বলার সময় ভাষাগত ভুলের কথা জানান তিনি।
স্মারকলিপি জমা দেওয়ার সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী মাহনগর ওয়ার্কাস পার্টির সভাপতি লিয়াকত আলী লিকু, মহানগর সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ প্রমাণিক দেবু, জেলা সাধারণ সম্পাদক এসএম আশরাফুল হক তোতা, তানোর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী শরিফুল ইসলামসহ প্রমুখ।
0Shares

 
 
 

আরও পড়ুন

 

Top