এভাবেই আসবে চিন্তার মুক্তি, দেনমোহরে বই!

লাইফস্টাইল ডেস্ক :

বিয়েতে দেনমোহর হিসেবে টাকা না নিয়ে বরের কাছ থেকে বই নিয়ে সবার প্রশংসা কুড়িয়েছেন আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃতী বাঙালি ছাত্রী সানজিদা পারভিন। তার আত্মসম্মানবোধই তাকে এ সম্মান এনে দিয়েছে।

পার্ক সার্কাসের সানজিদা পারভিন বলেন, আমি বরের ওপরে আর্থিকভাবে নির্ভরশীল নই, তা হলে ওর কাছ থেকে খামোকা টাকা নেব, কেন?

এদিকে জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সদ্য পিএইচডি করা বর মেহেবুব সাহানাও বইয়ের গুরুত্ব জানেন। তাই তো গত ১২ অক্টোবর ওই দম্পতির বিয়ে উপলক্ষে কনের জন্য উপহার হিসেবে তাই কেনা হয় ৬০ হাজার টাকার বইয়ের পাহাড়।

মুসলিম বিয়ের চিরাচরিত রীতি কনের প্রাপ্য উপহার বা ‘দেনমোহর’। কনের জীবন সুরক্ষিত করতে নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা ধার্য করার কথা বলা হয়। তবে বরের থেকে কী নেবেন, সেটা একান্তই কনের অধিকার। সুশিক্ষিত সানজিদার কাছে টাকা বা গহনার চেয়ে বইয়ের মূল্য অনেক বেশি, কারণ তিনি ইংরেজি সাহিত্যে পিএইচডি করছেন।

বর্ধমানের খণ্ডঘোষের চাষির ঘরে জন্ম নেওয়া মেহেবুব বলেন, বাবা শহরে নিরাপত্তা-রক্ষীর কাজ করেও আমাদের লেখাপড়া শিখিয়েছেন। আমার হবু স্ত্রী যখন টাকার বদলে বইয়ের কথা বলেন, তার প্রতি আমার ভালো লাগার সঙ্গে সঙ্গে এক ধরনের সম্মানও তৈরি হয়েছে।

দেনমোহর শুধুই কনের অধিকার। এটার পরিমাণ ঠিক করতে হবে বরের আর্থিক অবস্থা বিবেচনায় রেখে। আর কিছু টাকা কখনোই একটি জীবন সুরক্ষিত করার জন্য যথেষ্ট নয়। দিন বদলেছে পরিবার থেকেও মেয়ের জন্য টাকা বা গয়নার পরিবর্তে তার জীবনে পরিবর্তন আসে, সে দেনমোহর বা উপহারের টাকায় কোনো ছোট ব্যবসা শুরু করতে পারে কিনা এসব নিয়ে ভাবা উচিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *