আজ বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:৪৯ অপরাহ্

নিজস্ব প্রতিবেদক :     ডেঙ্গু জ্বর আর এডিস মশাকে নিয়ন্ত্রণে আনা পর্যন্ত আওয়ামী লীগের পরিচ্ছন্নতা অভিযান ও সচেতনতামূলক কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন ওবায়দুল কাদের। এও বলেছেন, ‘আমরা লোকে দেখানো কর্মসূচি জনগণকে ভাওতা দিতে চাই না, প্রতারণা করতে চাই না।’

পরিচ্ছন্নতা অভিযানে বিভিন্ন এলাকায় ঝাড়ু হাতে রাজনৈতিক বা শিক্ষক নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের ছবি আসার পর তীব্র সমালোচনা তৈরি হয়েছে। এর মধ্যেই এমন মন্তব্য এলো কাদেরের পক্ষ থেকে।

আওয়ামী লীগের এই পরিচ্ছন্নতা অভিযানের অবশ্য সূচনা হয়েছিল কাদেরের হাত দিয়েই। মূলত দেশবাসীর মধ্যে সচেতনতা ছড়িয়ে দেওয়াই ছিল এর উদ্দেশ্য। যদিও পরে তিনি নিজেই নেতা-কর্মী ও জনপ্রতিনিধিদের পরিচ্ছন্নতা অভিযানের নামে ‘ফটোসেশনের’ সমালোচনা করে বলেছেন, সত্যিকার অর্থে কাজে লাগতে।

বুধবার সকালে রাজধানীর মাজার রোডে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযানের উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

ডেঙ্গু মোকাবেলায় জনগণকে সচেতন করতে ‘পরিষ্কার রাখি চারপাশের পরিবেশ, শেখ হাসিনার নির্দেশ ডেঙ্গুমুক্ত বাংলাদেশ’ শিরোনামে এই কর্মসূচি পালন করছে ক্ষমতাসীন দল।

নগরবাসীকে যার যার ঘর, ঘরের আঙিনা, যার যার কর্মস্থল, আশপাশের এলাকা, স্কুল, কলেজ ক্যাম্পাস এবং বিপণি বিতান পরিচ্ছন্ন রাখা রাখার আহ্বান জানিয়ে কাদের বলেন, ‘এটাই হচ্ছে শেখ হাসিনার নির্দেশ।’

‘আমাদের এই প্রোগ্রাম হচ্ছে, অ্যাকশন প্রোগ্রাম। এই অ্যাকশন শেখ হাসিনার অ্যাকশন, ডেঙ্গু বিরোধী অ্যাকশন, এইডিস বিরোধী অ্যাকশন। এটা সচেতনতামূলক একটা প্রোগ্রাম।’

লন্ডন সফরে থাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিবিসি বাংলাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারের কথা তুলে ধরে সড়ক মন্ত্রী বলেন, ‘কারও ঘরের কাছে বা ঘরে যদি এ ধরনের পানি জমা থাকে, যেখানে এ ধরনের মশা তৈরি হচ্ছে; এরকম আমরা যদি দেখতে পাই, তাহলে তাদেরকে ফাইন করা হবে।’

ডেঙ্গু থেকে বাঁচতে সবাইকে মশারি ব্যবহারেরও পরামর্শ দেন সড়কমন্ত্রী। বলেন, ‘মশারি টাঙানোর বিকল্প নেই। আপনি যখন ঘুমোতে যাবেন, রাতের বেলায় তো দিনের বেলায়ও মশারি ব্যবহার করবেন।’

‘মানুষ আজ এই প্রাণঘাতি ডেঙ্গু জ্বর থেকে মুক্তি চায়। মানুষ আজ এইডিস মশার উপদ্রপ থেকে বাঁচতে চায়। মানুষের থেকে মশক শক্তিশালী নয়। আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছি। সমন্বিত উদ্যোগে এই প্রাণঘাতি মশক নিধনে এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ইনশাল্লাহ আমরা সফল হব।’

মশা নিধনে কার্যকর ওষুধ দুই শিগগির আসছে বলেও জানান আওয়ামী লীগ নেতা। বলেন, ‘যেই ওষুধে সত্যিকার অর্থে মশক নিধন হবে, মানুষ চায় সেই ওষুধটা।’

‘মশার কার্যকর ওষুধ আমদানির প্রক্রিয়া দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। আশা করছি, দুই-চার দিনের মধ্যে কার্যকর এই ওষুধ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাহেব বলছেন, ব্যবস্থা করছেন।দুই-চার দিনের মধ্যে মশা নিধনের কার্যকর ওষুধ আমরা পাব, ঢাকায় এসে পৌঁছাবে।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য এসএম কামাল হোসেন, মির্জা আজম, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

Share on Facebook Share on Twitter

আরও পড়ুন