আজ বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:২১ অপরাহ্

২০১৭ সালের তুলনায় হজে যাওয়ার খরছ বাড়লো এবার। ফলে ২০১৮ সালে হজে যেতে হলে ২০১৭ সালের খরচের তুলনায় বাড়তি খরচ বহন করতে হবে। ১৬ হাজার ৪২১ টাকা সরকারি ব্যবস্থাপনায় এবার এক নম্বর প্যাকেজে আর দুই নম্বর প্যাকেজে ১২ হাজার চার টাকা বেড়েছে।

সচিবালয়ে সোমবার সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রীপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘জাতীয় হজ ও ওমরাহ নীতি-২০১৮’ এবং ‘হজ প্যাকেজ-২০১৮’ এর খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়।

মন্ত্রীপরিষদ সচিব শফিউল আলম বলেন, সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্যাকেজ- ১ এর আওতায় হজে যেতে এবার ৩ লাখ ৯৭ হাজার ৯২৯ টাকা ব্যায় হবে, যা ২০১৭ সালে ছিল ৩ লাখ ৮১ হাজার ৫০৮ টাকা। এছাড়া প্যাকেজ-২ এর আওতায় ৩ লাখ ৩১ হাজার ৩৫৯ টাকা খরচ হবে, যা ২০১৭ সালে ছিল ৩ লাখ ১৯ হাজার ৩৫৫ টাকা।

অন্যদিকে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এবার সর্বনিম্ন এক লাখ ৬৮ হাজার ২৭৭ টাকা খরচ নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার, যা ২০১৭ সালে ছিল এক লাখ ৫৬ হাজার ৫৩৭ টাকা। তবে সুবিধার ধরণ অনুযায়ী বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে টাকার অংক কমবেশি হতে পারে।

শফিউল আলম বলেন, প্রাক-নিবন্ধন করতে এনআইডি থাকার বাধ্যবাধকতা থাকলেও প্রবাসীরা পাসপোর্টের মাধ্যমে প্রাক-নিবন্ধন করতে পারবেন। প্রাক-নিবন্ধন করেও যারা চূড়ান্ত নিবন্ধন করবেন না তাদের নিবন্ধনের মেয়াদ আরও একবছর থাকবে। পরপর দুই বছর চূড়ান্ত নিবন্ধন না করলে ধরে নেওয়া হবে তিনি হজে যেতে আগ্রহী নন।

অপরদিকে ধর্ম মন্ত্রণালয় জানায়, সৌদি আরবের সঙ্গে হজ চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ থেকে এবার একলাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজ করতে পারবেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় সাত হাজার ১৯৮ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ২০ হাজার জন। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১৬০৭৩ এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৩৫২২৯২ ক্রমিক নম্বর পর্যন্ত চূড়ান্ত নিবন্ধন করতে পারবেন।

Share on Facebook Share on Twitter

আরও পড়ুন