শিরোনাম

আজ শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:২১ পূর্বাহ্ন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

দূষণের কারণে বসবাসের অনুপযোগী হয়ে উঠছে উত্তর ভারত। মারাত্মক বায়ু দূষণের সঙ্গে লড়তে হচ্ছে এখানকার বাসিন্দাদের। পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী নানা স্থাপনাও। শ্বেত-মার্বেল পাথরের তাজমহল এর মধ্যে অন্যতম। রাজকীয় এ স্থাপনাকে দূষণের হাত থেকে বাঁচাতে বায়ু পরিশোধক ভ্যান ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছে উত্তর প্রদেশ পলিউশন কন্ট্রোল বোর্ড (ইউপিপিসিবি)।

রোববার (০৩ নভেম্বর) ইউপিপিসিবি এই নির্দেশ দেয়। ভারতীয় গণমাধ্যম এ তথ্য জানায়।

ইউপিপিসিবির প্রাদেশিক কর্মকর্তা ভুবন যাদভের বরাতে খবরে বলা হয়, বায়ু পরিশোধক ভ্যানটি আট ঘণ্টায় ৩শ’ মিটার রেডিয়াস এলাকার ১৫ লাখ কিউবিক সেন্টিমিটার বাতাস পরিশোধন করতে পারে।

অনেক বছর ধরেই দূষণের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছিল রাজকীয় সমাধিটির শ্বেত পাথরের দেয়াল। আগ্রা জেলা প্রশাসন, ইউপিপিসিবি ও টেলিকম অপারেটর ভোডাফোন-আইডিয়ার সমন্বিত উদ্যোগে দূষণ মোকাবিলায় দু’টি বাতাস পরিশোধক ভ্যান ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

ভ্যান দু’টি আগ্রায় আনা হয়েছে ২৪ অক্টোবর। এর মধ্যে একটি এখন তাজমহল এলাকায় রাখা হয়েছে।

যাদভ বলেন, এই মুহূর্তে তাজমহল এলাকায় সার্বক্ষণিক বায়ু পর্যবেক্ষণ করে এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স (একিউআই) নির্ণয়ের ব্যবস্থা নেই। তাই এখন পর্যন্ত কী পরিমাণ বাতাস পরিশোধিত হয়েছে তা সুনির্দিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না।

তবে, শহরের সঞ্জয় প্যালেসে সার্বক্ষণিক বায়ু পর্যবেক্ষণ করে দূষণের পরিমাপ নির্ণয়ের ব্যবস্থা আছে।

সেন্ট্রাল পলিউশন কন্ট্রোল বোর্ডের মতে, ৩ নভেম্বর স্থানীয় সময় বিকেল ৪টায় একিউআই ছিল ২৯৩ ইউনিট। একিউআই ২০১ থেকে ৩০০ পর্যন্ত থাকলে বায়ু দূষণ অসহনীয় মাত্রার বলে ধরা হয়। এ অবস্থায় বেশিক্ষণ থাকলে শ্বাসকষ্টসহ নানা স্বাস্থ্যঝুঁকির আশঙ্কা রয়েছে।

গত কয়েকদিনে উত্তর ভারতের কয়েকটি শহরে বায়ু দূষণ মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। ফলে, দেশটির রাজধানী দিল্লিতে স্বাস্থ্য সতর্কতা জারি করতে বাধ্য হয়েছে প্রশাসন। পাশাপাশি ৫ নভেম্বর পর্যন্ত বন্ধ থাকবে সব স্কুল।

Share on Facebook Share on Twitter

আরও পড়ুন